সপ্তাহের সেরা

    আখ্যাত রচনা

    কবিতাদুনিয়া-সার

    দুনিয়া-সার

    পথের ধারে বিশাল মাকাবুরা, সারি সারি কবর;
    চেনা-অচেনা কত মানুষ, কেউ তো রাখে না খবর
    বছরের পর বছর যায়, একাকী—
    ভাবে না মানুষ, আমার কতদিন বাকী!
    যারা মনে করে অসার সব আয়োজন দুনিয়ায়,
    তাদের ঈমানে ঘাটতি আছে, তারা বড় অসহায়!

    হায়! এই পৃথিবী কর্মক্ষেত্র, যে যেমন কর্ম করে
    তেমনি আছে সুফল-কুফল, কবরে তাহার তরে।
    হে মানুষ শোন! দুনিয়া অসার নয়—
    যা চাষ করেছ, তারই ফসল হয়!
    ভাল বীজ বুন ভাল জমিতে, ভাল কর চাষাবাস;
    ঈমান, মন, সৎকর্ম করলেই কবরে সুখের আশ!

    তাহের আলমাহদী
    তাহের আলমাহদী
    জন্ম কুমিল্লায়। পড়াশোনা করেছেন লাকসাম নওয়াব ফয়েজুন্নেসা সরকারি কলেজ ও নোয়াখালী সরকারি কলেজে। রিযিকের সন্ধানে দেড় যুগের বেশি সময় আছেন সাউদী আরবে। সাহিত্যের চর্চা ছাত্রজীবন থেকে হলেও কোন লেখাই প্রকাশিত হয়নি। সাহিত্যের প্রতি অনুরাগের বশেই গড়ে তুলেছে সাহিত্য বিষয়ক প্রতিষ্ঠান এডুলিচার। এছাড়া বিনামূল্য গ্রন্থ সরবরাহের জন্য আছে এডুলিচার অনলাইন লাইব্রেরি এবং সম্পাদনা করছেন অনলাইন সাহিত্য পত্র ‘জেগে আছি’।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here
    Captcha verification failed!
    CAPTCHA user score failed. Please contact us!

    মোহমত্ত জীবন

    মোহমত্ত জীবন আহা মোহের কী যে দশা! তুমি মত্ত হইলে তাহে হইবে জীবন সর্বনাশা। যেমন পতঙ্গ মরিছে জ্বলন্ত প্রদীপে পুড়িয়া, তাহার সৌন্দর্য দেখিয়া। হরিণ মরিছে কানে শুনিয়া ব্যাধের বংশীধ্বনিতে মজিয়া। কালো...

    হেরে যাইনি আমি

    হেরে তো যাইনি আমি হারিয়েও যাইনি পথে, অস্তিত্বে রয়ে গেছি স্বকীয়। পদচ্ছাপ ঠিক রয়েছে ঘরময় বিলীন হয়নি আজও। অনুভবের অনুবাদ তোলপাড় তব স্মৃতিতে ভ্রমণ অগণন সময়ের আলোড়ন...

    পরিবর্তন

    হৃদয় ছিল আমাজানের মত, সহস্রাধিক জাতের বৃক্ষ, লতা, গুল্মে ভরা, পশু, পাখি আর শ্বাপদের অভয়াচরণ। কামনার আগুনে জ্বলে গেছে সব, পড়ে আছে ছাই, কয়লা আর হাড়; হৃদয় এখন বিশাল...

    বিবরণ

    অদূরে পাহাড়; রঙের বাহার খেলিছে তাহার ’পর; নীলাভ সবুজ; মলিন সুরুজ; কুয়াশা বাঁধিছে ঘর। পাহাড়ের সারি গুনিতে না-পারি; গিয়েছে মিলিয়ে নভে; পাহাড়ের ছায়ে পাহাড় দাঁড়ায়ে; সবারই নজর...

    বহতা কষ্টনদী

    ২০২২সাল... এনেছিল কষ্টের বেনোজল ভাসায়ে নিয়েছে মোর মা'কে তারপর দিন-মাস করে করে, সময় ফুরালো পলে পলে। বেনামা শূণ্যতা বয়ে বয়ে... যা আজও অবিকল আছে । অনুভূতিরা রয়ে...

    তুমি ব্যঞ্জন

    একটা 'তুমি'র বিস্তৃতি যেনো আদিগন্ত ব্যাপী 'তুমি' শব্দটা তাই শত নামে স্বরূপি। কবির কলমও তুমিময়। গল্পে ও কাব্যগাথায় তেমনই প্রকাশ পায়। তবু বুঝতে পারি না একটা 'তুমি' সম্বোধন... ভরা কতোশত ব্যঞ্জন? আর...

    কল্পিত সুখের মহড়া

    মানুষের কল্পিত সুখটাই বোধকরি বেশি সুন্দর তেল-নুন ছাড়াই ঘরকন্না এখানে... অনায়াসে রাত-দিন স্বপ্নসৌধ গড়ে, নির্বিঘ্নে, ইট-কাঠ-পাথরে সেজে সংসারী। ঘর-বারান্দায় নরম আলোকিত সুখের মহড়া মোমে-মখমলে-সন্ধ্যাদীপে জড়িয়ে...

    পরিবর্তন

    সরলতাকে ধিক্কার দিও না প্রকৃতির নির্মলতা, জলের স্বচ্ছতা সেখানে। কোনো চাতুরি ছিল না। খুব করে চাইলে, বলতেই পারতে ছুটে কি আসতে পারতাম না? নিঃস্ব ...

    সময়ের সুখ অসুখ

    সুখের এবং অসুখের দুদিন মাত্র সময় জীবনও তাই, আলোকোজ্জ্বল, মেঘময়। সময় যা করে তার তরে নিন্দা যে করে, তারে বল, সময় কি ছাড়ে মহাপুরুষেরে? তুমি কি দেখ নি,...

    মনোরম সাঁঝ

    জলে যে জীবন আছে তারাও কি জ্বলে প্রেমে পড়ে তাদেরও কি আছে নাকি সামাজিক বাধা, এক হতে তারাও কি ঘর ছাড়ে, বাধা আসে নানা ধর্ম...

    কিছু কথা থাকে

    জীবনে কিছু কথা থাকে লুকিয়ে রাখার জন্য কিছু কথা থাকে চিরকাল বয়ে বেড়ানোর জন্য কিছু কথা থাকে শুধু দুজনের চোখাচোখি হবার জন্য তেমনি কিছু...

    অসুখ

    এসব পুরনো রোগ। মাঝে মাঝে কচুরিপানা ভর্তি পাঁক হতেভুস করে ভেসে ওঠে আর ভুবন চিল ডানা মেলে আকাশে চক্রাকারে ভাসে। এসব পুরনো রোগএমনই হয়।জোনাকিরা ওড়ে...

    লেখক অমনিবাস

    তাভিরনেয়ের ভ্রমণ : পর্ব চার

    তৃতীয় পরিচ্ছেদ কনস্টান্টিনোপল থেকে ইস্পাহান পর্যন্ত সড়কের ধারাবাহিকতা, পারস্য সীমান্ত থেকে এরিভান পর্যন্ত। এরিভান থেকে তিন লীগ দূরে এটি প্রথম স্থান, খুব মনোযোগ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করতে...

    তাভিরনেয়ের ভ্রমণ : পর্ব পাঁচ

    চতুর্থ পরিচ্ছেদ : এরিভান থেকে তাউরিস পর্যন্ত একই রাস্তার ধারাবাহিকতা। এরিভান ও টাউরিসের মধ্যে কাফেলা যাতায়াত করতে সাধারণত দশদিন সময় লাগে; এবং ন্যাকসিভান উভয়ের প্রায়...

    হিজড়াদের সামাজিক পুনর্বাসন সম্ভব কি?

    রাজা-বাদশাহদের যুগে কিছু মানুষের পুরুষত্ব নষ্ট করে নপুংশক বানান হত, মোঘল প্রাসাদ, ভারতবর্ষে নবাবদের প্রাসাদ এবং ইরানে এই ধরনের লোকেদের বলা হত খোজা, ওসমানীয়...