সপ্তাহের সেরা

    আখ্যাত রচনা

    তাভিরনেয়ের ভ্রমণ : পর্ব পাঁচ

    মূল : The Six Voyages of John Baptista Tavernier (1678)

    চতুর্থ পরিচ্ছেদ : এরিভান থেকে তাউরিস পর্যন্ত একই রাস্তার ধারাবাহিকতা।

    এরিভান ও টাউরিসের মধ্যে কাফেলা যাতায়াত করতে সাধারণত দশদিন সময় লাগে; এবং ন্যাকসিভান উভয়ের প্রায় মাঝপথে। প্রথম দিনের যাত্রা হবে ধান বপন করা বড় সমভূমির উপর দিয়ে এবং বিভিন্ন ছোট ছোট নদীর জল মাড়িয়ে। পরের দিনও আপনি একই প্রকৃতির সমভূমিতে ভ্রমণ করবেন। আরাত পর্বত দেখতে পাবেন। এটি মঠে পরিপূর্ণ। এটিকে দক্ষিণে রেখে চলবেন। আরমেনীয়রা এই পর্বতকে বলে মেসেসোফার, জাহাজের পর্বত; কারণ নূহের জাহাজ এই পর্বতেই থেমেছিল। এটি আর্মেনিয়ার অন্যান্য পর্বতমালা থেকে বিচ্ছিন্ন এবং অর্ধ-পথ থেকে শীর্ষ পর্যন্ত তুষারাবৃত। এটি পার্শ্বর্তী অন্যান্য পর্বতমালা থেকে উচ্চতর; আমার প্রথম ভ্রমণে পাঁচদিনের যাত্রায় আমি এটিকে পর্যবেক্ষণ করেছি। এটি আবিষ্কার করার সাথে সাথেই আরমেনীয়রা পৃথিবীকে চুম্বন করে এবং আকাশের দিকে চোখ তুলে তারা প্রার্থনা করে। তবুও খেয়াল রাখতে হবে, পর্বতটি দুই তিন মাস একসঙ্গে মেঘের আড়ালে লুকিয়ে থাকে। দ্বিতীয় দিনের যাত্রায় আপনি যে সমভূমিগুলো অতিক্রম করবেন, মহাসড়ক থেকে দেড় লীগ দূরে দক্ষিণ দিকে দুর্দান্ত শিল্পকর্ম দেখতে পাবেন; একটি জাঁকজমকপূর্ণ দুর্গের ধ্বংসাবশেষ, যেখানে আর্মেনীয় রাজারা তাদের শিকারের সময় বসবাস করতেন; বিশেষ করে তারা যখন বনহাঁস ও সারস শিকার করতেন। পরদিন আমরা একটি গ্রামের নিকটে পৌঁছলাম, সুপেয় জলের কারণে সেখানে থাকতে বাধ্য হলাম; দশ লীগের মধ্যে আর এমন জল মিলবে না। পরদিন ভ্রমণ করতে হবে একটি গিরিপথ দিয়ে একজন একজন করে এবং অর্পা-সু নামক একটি বড় নদী পার হতে হবে যা আরাসে পতিত হয়েছে। জল কম থাকলে এটি পদচলে পার হওয়া যায় কিন্তু যখন তুষার গলে ও স্রোত ফুলে যায় আপনাকে পথ ছেড়ে দক্ষিণদিকে একলীগ দূরে পাথরের সেতু দিয়ে পার হতে হবে। এখান থেকে থাকার জন্য আপনাকে কালিফাকিণ্ড নামক গ্রামে যেতে হবে, সেখানে আপনাকে বাধ্য হয়েই সুপেয় জল নিয়ে যেতে হবে। প্রথম দিনের যাত্রা একটি সমভূমির মধ্য দিয়ে, যার শেষে আপনি একটি অতিথীশালা পাবেন, যাকে বলা হয় কারা-বাগলার। এটি ১৬৬৪ সালে একটি ছোট নদীর তীরে গড়ে তোলা হয়েছিল। এই ছোট নদীর ধারাটি এসেছে তিন চার লীগ উপরে উত্তর দিক থেকে; গেছে কারা-বাগলার থেকে অর্ধলীগ নিচে পানি জমা হয়ে পাথরে পরিণত হয়। এইসব পাথর দিয়েই এই অতিথীশালাটি নির্মিত হয়েছে। এই পাথর খুবই স্বচ্ছ ও পাতলা; যখন তারা এর প্রয়োজন মনে করে, তখন তারা স্রোত বরাবর একটি গর্ত তৈরি করে এবং তাতে একই জল দিয়ে পরিপূর্ণ করে। আট বা দশ মাসের মধ্য জল পাথরে পরিণত হয়। এই জল খুব মিষ্ট ও বাজে স্বাদ নেই; তবু আশেপাশের দেশবাসীরা তা পান করবে না, এই জল জমিতেও দিবে না। আরমেনীয়রা বলে নূহের পুত্র শাম পাথরকে ফাঁফা করে দিয়েছিল, যা থেকে এই নদীটি নির্গত হয়েছে। এটি উৎপত্তিস্থল থেকে চার পাঁচ এবং অতিথীশালা থেকে দুই লীগ পরে আরাসে মিলিত হয়েছে। এই অতিথীশালা থেকে নকসিভান ছোট যাত্রা। আরমেনীয়দের মতে নকসিভান পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন নগর; এটি যে পর্বতে নূহের জাহাজ থেমেছিল তার থেকে প্রায় তিন লীগ দূরে। এর থেকেই তার নাম নকসিভান। আরমেনীয় ভাষায় নাক অর্থ জাহাজ এবং সিভান অর্থ থামান বা রাখা। এটি ছিল বড় নগর যা সুলতান মুরাদের সেনাবাহিনী দ্বারা সম্পূর্ণরূপে ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছে। তুর্কিরা ধ্বংস করেছে এমন বেশ কিছু বিরল মসজদিরে ধ্বংসাবশেষ রয়েছে; কারণ তুর্কি ও পারস্যরা নিজের দখলকৃত এলাকায় খুব দ্রুত একে অপরের মসজিদ ধ্বংস করে ফেলে। নগরটি অতিপ্রাচীন, আরমেনীয়ার বলে, পর্বতে জাহাজ ভিড়ানোর পর নূহ এখানেই বসবাস করেছিলেন। তারা এও বলে, তাঁকে এখানেই সমাহিত করা হয়েছিল; টাউরিসের রাস্তায় মারান্তে তাঁর স্ত্রীর কবর রয়েছে।  নাকসিভানের পাশ দিয়ে একটি ছোট নদী বয়ে চলেছে, যার জল খুবই ভাল; কারাবাগলার নদীর উৎপত্তিস্থল থেকে এই প্রস্রবণ খুব একটা দূরে নয়। পূর্বে আরমেনীয়রা এই শহরে রেশমের ব্যবসা চালাত, যা এখন অনেকটাই বন্ধ হয়ে গেছে। তবে, এখানে একজন খানের শাসন বলবৎ রয়েছে। এরিভান ও টাউরিসের মধ্যবর্তী সমস্ত দেশ সম্পূর্ণ রূপে পারস্যের রাজা শাহ আব্বাস কর্তৃক ধ্বংস প্রাপ্ত হয়। শেষ পর্যন্ত তুর্কিবাহিনী আহারযোগ্য কোন দ্রব্যসামগ্রী না পেয়ে নিজেদের বিনষ্ট করে ফেলে। এই উদ্দেশ্যে তিনি জুলফা ও পারস্য সংলগ্ন সমস্ত বাসিন্দা, বৃদ্ধ ও যুবা, বাবা, মা ও শিশুকে পারস্যে পাঠিয়ে দেন, যার সাহায্যে তিনি তার সাম্রাজ্যের বিভিন্ন অংশ নতুন উপনিবেশ স্থাপন করেছিলেন। তিনি সাতাশ হাজারেরও বেশি আরমেনীয় পরিবারকে গুইলানে পাঠিয়েছিলেন, যেখান থেকে রেশম আসে; সেখানকার রুক্ষ জলবায়ু সেই দরিদ্র পরিবারগুলোর অনেককে হত্যা করেছিল যারা ছিল হালকা বায়ুতে অভ্যস্ত। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পাঠানো হয়েছিল ইস্পাহানে, সেখানে বাদশা তাদের রেশম ব্যবসায় নিযুক্ত করেছিলেন এবং তাদের পণ্য ধার দিয়েছিলেন। তারা তাদের লভ্যাংশ দিয়ে সে ধার পরিশোধ করেছিলেন। যা দ্রুত আর্মেনীয়দের পুনরায় তাদের পায়ে দাঁড় করিয়েছিল। তারাই জুলফা নগর গড়ে তুলেছিলেন যা ইস্পাহান থেকে শুধুমাত্র সেনদেরো নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন ছিল। পুরোনো নগর থেকে আলাদা করার জন্য এটিকে বলা হতো নতুন জুলফা। জুলফা ছিল তাদের পূর্বপুরুষদের বাসস্থান। জনগণের তৃতীয় অংশটি ইস্পাহান ও সিরাজের মধ্যবর্তী গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছিল। কিন্তু পুরোনো লোকেরা মৃত্যুবরণ করে আর অল্পবয়সীরা মুসলমান হয়ে যায়; যার ফলে সেই সমস্ত অঞ্চলে এখন দুজন আরমেনীয় খ্রিস্টানের সাক্ষাৎ পাওয়াও দুরূহ, যাদের পিতাদের সেখানে জমিতে সার দেওয়ার জন্য পাঠানো হয়েছিল।

    নাকসিভানের ধ্বংসাবশেষের মধ্যে একটি বড় মসজিদের ধ্বংসাবশেষ দেখা যায়, যা ছিল বিশ্বের জমকালো স্থাপনাগুলোর একটি। কেউ কেউ বলেন যে, এটি নূহের সমাধিস্থলের স্মৃতিতে নির্মিত হয়েছিল। নগর থেকে বেরুলে, এটির পাশ দিয়ে প্রবাহিত নদীর তীরে একটি উঁচু অট্টালিকা দেখা যায়, যা স্থাপত্যের অতি চমৎকার অংশ। এটি চারটি বড় গির্জার সমন্বয়ে গঠিত, যা এক ধরণের পিরামিডের মত মনে হয়। এটিকে বারোটি ছোট উঁচু ভবনের তৈরি বলে মনে হয়। কিন্তু মাঝামাঝি দিকে এটি তার চিত্র পরিবর্তন করে এবং একটি কুণ্ডলীর মত কমতে কমতে একটি বিন্দুতে শেষ হয়েছে। স্থাপনাটি পুরোটাই ইটের তৈরি, তবে ভিতরে ও বাইরে এক ধরণের পলেস্তারার প্রলেপ দিয়ে খোদাই করা ফুলের মত চিত্রিত করা হয়েছে। মনে করা হয়, তৈমুর লঙ যখন পারস্য বিজয় করেছিলেন, তখন এটি তাঁর দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।

    নাকসিভান ও জুলফার মধ্যে, প্রত্যেক দিকে উত্তর হতে দক্ষিণে, আরমেনীয় খ্রিষ্টানদের দশটি কনভেন্ট রয়েছে। এদের একটি থেকে অন্যটি দুই তিন লীগ দূরে। তারা পোপকে মান্য করে এবং তাদের স্বজাতীয় ধর্মীয় ডোমিনিকান[1] দ্বারা পরিচালিত হয়। তাদের ধর্ম বজায় রাখতে তারা সময়ে সময়ে লাতিন ও ইতালীয় ভাষা এবং দরকারী বিজ্ঞান শিক্ষার জন্য তাদের দেশে জন্মগ্রহণকারী কিছু শিশুকে রোমে পাঠায়। ধারণা করা হয়, এই বসতিতে ছয় হাজারের বেশি মানুষ আছে যারা পুরোপুরি রোমান চার্চের মতবাদ অনুসরণ করে; তারা আরমেনীয় ভাষায় শুধুমাত্র উপাসনা করে ও ধর্মসঙ্গীত গায় যাতে সাধারণ মানুষ তাদের কথা শুনতে ও বুঝতে পারে। আর্চবিশপ নির্বাচিত নিশ্চিত হওয়ার জন্য রোমে পাঠানো হয়। তিনি একটি বড় শহরে বাস করেন যা সমগ্র এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে মনোরম স্থানগুলোর অন্যতম; মানব জীবনের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য সমস্ত সামগ্রীর প্রাচুর্য ছাড়াও সেখানে যে ওয়াইন ও ফল উৎপন্ন হয় তা অত্যন্ত উন্নতমানে। প্রতিটি কনভেন্ট একটি বড় গ্রামের পাশে প্রতিষ্ঠিত। প্রধানতমটি হল আবারেনার, সেখানে আমি দুবার গিয়েছি, দ্বিতীয় আব্রাঘোনেক্স, তৃতীয় কেরনা, চতুর্থ সোলেতাক, পঞ্চম কাউচকাচেন, ষষ্ঠ গিয়াউক, সপ্তম চিয়াবোনেজ, অষ্টম আরঘৌচে, নবম কাজুক, দশম কিসুক যা কুর্দিস্তান বা আসিরিয়ার সীমান্তে অবস্থিত। আরমেনীয়রা বিশ্বাস করে সন্তু রার্থোলোমিউ ও সন্তু ম্যাথিউকে শহীদ করা হয়েছে, যার কারণে এই দিনে তারা কিছু স্মৃতিচিহ্ন প্রদর্শন করে। অনেক মুসলমান শ্রদ্ধা প্রকাশ করতে এখানে আসে, বিশেষ করে যারা জ্বরে ভুগেছেন। ঐ কনভেন্টগুলোর মধ্যে দুই তিনটি আছে যারা ইউরোপ থেকে আসা খ্রিষ্টানদের সভ্যভাবে আতিথ্য প্রদর্শন করে যদিও সন্ন্যাসীরা সেখানে খুবই দরিদ্র। তারা অত্যন্ত কঠোর জীবন যাপন করে, ভেষজ ছাড়া কিছুই খায় না। যা তাদের অতি দরিদ্র করে তোলে তা হল অত্যাচারী সুবাদারদের প্রায়শই পরিবর্তন, যাদেরকে তারা বড় উপহার দিয়ে বরণ করতে হয়। কিন্তু তারা তেমন কিছু দিতে পারে না, এই সুবাদারদের তাদের প্রতি কোন অনুগ্রহ নেই। যার কারণে, তারা অন্যান্য আরমেনীয়, যারা তাদের সন্তুষ্ট করতে পারে তাদের দ্বারা প্ররোচিত হয়। তারা তাদের সাথে এমন নিষ্ঠুর আচরণ করে যে তারা বাদশাহের কাছে অভিযোগ করতে বাধ্য হয়; যা আমি অনেকবার ইস্পাহানে করতে দেখেছি।

    এই কনভেন্টগুলোর প্রধানতমটি থেকে দেড় লীগ দূরে একটি উঁচু পর্বত আছে, যা বাকিগুলো থেকে আলাদা, যা চিনির ডেলার মত উঠে গেছে, যেন পাইক অব টেনেরিফ। এই পর্বতের পাদদেশে কিছু ঝর্ণা রয়েছে, যেগুলোতে সাপের বিষ নিরাময় করার গুণ রয়েছে; এত বেশি যে, যদি সাপেদের সেখানে নিয়ে রাখা হয় তাৎক্ষণিক মারা যাবে।

    কাফেলা যখন নাকসিভান থেকে জুলফার উদ্দেশ্যে যাত্রা করার জন্য প্রস্তুত হয়, যেই সেখান থেকে একদিনের যাত্রার বেশি নয়, তখন প্রধান আরমেনীয়রা সাধারণত দক্ষিণ দিকে অবস্থিত সন্তু স্টিফেনের কনভেন্টের পথে চলে যায়।

    এই সময়ে নাকসিভান থেকে সন্তু স্টিফেন পর্যন্ত রাস্তাটিতে একটি গ্রাম পড়ে, নাম ইক্লিসিয়া। সেখানে ধনী আরমেনীয়রা বসবাস করে যারা রেশমের দুর্দান্ত ব্যবসায় চালায়। তাদের খুব সুন্দর একটি চার্চ রয়েছে।

    ইক্লিসিয়া তেকে দুই লীগ পরে আরাস নদী পার হতে হবে খেয়া নৌকায়, কেননা, এই স্থানটি দুটি পর্বতের মধ্যবর্তীতে। একবার আমি বরফের উপর গিয়েছিলাম। প্রায় দুই মাসকেট শট পরে একটি সেতু পার হতে হয়, এটি আরাসে পড়া অন্য নদী। সেতুর পাদদেশ থেকে একটি ছোট পাহাড়ে উঠতে শুরু করুন, এর চুঁড়ায় আছে একটি বড় গ্রাম, নাম সাম্বে। যার বাসিন্দারা, পুরুষ এবং মহিলা, ১৮ বছর বয়সে পাগল হয়ে যায়; কিন্তু এই পাগলামি ক্ষতিকর নয়। কেউ কেউ এটাকে আসমানী সাজা বলে বিশ্বাস করে, কারণ এই পর্বতে তাদের পূর্বপুরুষেরা সন্তু বার্থোলোমিউ ও সন্তু ম্যাথিউকে নির্যাতন করেছিল।

    সেখান থেকে সন্তু স্টিফেনের দূরত্ব একলীগের বেশি নয়, তবে পথটি ঝামেলাপূর্ণ। সন্তু স্টিফেন একটি কনভেন্ট যা তৈরি হয়েছে ত্রিশ বছরও হয়নি। এটি পর্বতশিখরে অনুর্বর স্থানে অবস্থিত যাতে করাও অনেক কঠিন। কিন্তু আর্মেনীয়রা এই স্থানটিকে অন্য যেকোন স্থানের আগে পছন্দ করার কারণ হলো, সন্তু বার্থলোমিউ ও সন্তু ম্যাথিউ তাদের নিপীড়নের সময় এখানে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তারা বলে, সন্তু ম্যাথিউ সেখানে এক অলৌকিক কাজ করেন। সেখানে আগে জল ছিল না, তিনি তার লাঠি যেখানে মাটিতে মেরেছিলেন সেখানে বর্তমানে একটি ঝর্ণা দেখা দিয়েছে। ঝর্ণাটি কনভেন্ট থেকে একলীগের এক অষ্টমাংশ দূরে একটি ভাল দরজাওয়ালা ভল্টের নীচে, যাতে জলের অপচয় রোধ করা যায়। আরমেনীয়রা এই ঝর্ণায় প্রবল ভক্তিসহ বেড়াতে যায়। নলের দ্বারা কনভেন্টে পানি সরবরাহ করা হয়। তারা আরও বলে, এই স্থানে তারা সন্তু বার্থলোমিউ ও সন্তু ম্যাথিউ রেখে যাওয়া কিছু পবিত্র স্মৃতিচিহ্ন খুঁজে পেয়েছে। যেগুলোতে তারা অনেক কিছু যুক্ত করেছে। যেমন একটি ক্রুশ, একটি গামলা যাতে খ্রিষ্ট তাঁর শিষ্যদের পা ধুয়ে দিয়েছিলেন। ক্রুশের মধ্যখানে একটি সাদা পাথর, তারা বিবৃত করে, যদি সেটি কোন অসুস্থ মানুষের উপর রাখা হয়, যদি লোকটি মৃত্যুপথযাত্রী হয় তাহলে কালো হয়ে যাবে, এবং লোকটির মৃত্যুর পর পুনরায় সাদা হয়ে যাবে।

    শহীদ সন্তু স্টিফেনের চোয়ালের হাড়।

    সন্তু ম্যাথিউর খুলি।

    সন্তু জন ব্যাপটিষ্টের একটি ঘাড়ের হাড় ও একটি আঙুলের হাড়।

    সন্তু গ্রেগরির একটি হাত, যিনি ডায়োনিসিয়াস দ্য অ্যারিওপাজিটের শিষ্য ছিলেন।

    একটি ছোট সিন্দুক যাতে প্রচুর পরিমাণে হাড়ের টুকরো রাখা, যা তারা বাহাত্তর শিষ্যের অবশেষ বলে বিশ্বাস করে।

    আরমেনীয়দের সমস্ত চার্চের মত, চার্চটি ক্রস আকারে নির্মিত। এর মাঝখানে আছে একটি গুম্বজ, যার চারপাশে বারজন দূত দাঁড়িয়ে আছেন। চার্চ ও কনভেন্ট উভয়ই মুক্ত পাথরের, অট্টালিকাটি বেশি বড় নয়, কিন্তু দেওয়ালের উপর প্রচুর সোনা ও রূপার অপচয় করা হয়েছে। এতে অনেক আরমেনীয় পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। কারণ মহিলারা এতটাই ধার্মিক ছিলেন যে, স্বামীকে না জানিয়ে তারা তাদের গহনা ও পোশাকাদি বিক্রি করেছিল নির্মাণ ব্যয় মিটানোর জন্য।

    প্রথমবার যখন আমি সন্তু স্টিফেনে গিয়েছিলাম, কিছু আরমেনীয় বন্ধু, দুজন বিশপ, আরও কয়েকজন উপস্থিত সন্ন্যাসী আমাদের সাথে সাক্ষাৎ করতে বেরিয়ে আসেন। তারা আমাদের একটি বড় ঘরে নিয়ে গেলেন, যেখানে আমাদের অনেক ভাল সমাদর করা হয়েছিল। আরমেনীয়দের রীতি হল, খাবারের একটু আগে তারা অতিথীদের এক বড় পেয়ালা একুয়াভিটা[2], সব ধরনের মিষ্টান্ন, জামির ও কমলার খোসার ভিতরে মণ্ডা ভর্তি সাত আটটি চিনামাটির পাত্র একটি বড় চীনা রেকাবিতে সাজিয়ে পরিবেশন করে। এটা ক্ষুধাবৃদ্ধির একটা ক্ষুদ্র উপলক্ষ্য। আরমেনীয় পুরুষ ও নারী উভয়ের জন্য দেওয়া হয় বড় পেয়ালায় একুয়াভিটা, যা তারা দ্রুত শেষ করে ফেলে। রাতের খাবার শেষে তারা চার্চে যায়, সেখানে তারা নির্দিষ্ট স্তোত্র গায়—আপনি যখন ফিরে আসবেন, শোওয়ার জন্য থাকবে পর্যাপ্ত সংখ্যক তোষক ও লেপ;—কারণ তারা সমগ্র এশিয়া জুড়ে অন্য কোন বিছানা ব্যবহার করে না—শুধু রাতে আপনি একটি গদির উপর কার্পেট বিছিয়ে নিবেন এবং দরোজা বন্ধ করে দিবেন। সারা সন্ধ্যায় আর্চবিশপকে দেখিনি, এখন চার্চে দেখলাম।

    মধ্যরাতে চার্চের সকল ঘণ্টা বেজে উঠল, সকলে চার্চে যাওয়ার জন্য জেগে উঠল। আমি মনে করি এটি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বাড়াবাড়ি। কেননা এটা ছিল শ্রোভেটাইড[3]। প্রার্থনা ও গণসঙ্গীত পরিবেশন, উভয়ই দিনের শেষে শেষ করা উচিত। সকাল আটটা ও নয়টার মধ্যে দস্তরখান বিছানো হয়। এই সময়ের পূর্বে আমরা বহুসংখ্যক গ্রাম মানুষ দেখলাম যারা ওয়াইন, ফল ও অন্যান্য দ্রব্যাদি নিয়ে এসে আর্চবিশপের নিকট সমস্ত দাখিল করেছিল।

    আমরা যখন প্রাতঃরাশ করছিলাম, তখন খবর এল, একজন নির্দিষ্ট বিশপ মারা গেছেন। তিনি তিনটি চার্চ থেকে ফিরে আসছিলেন। সেখানে গ্রাম থেকে তাকে নির্দিষ্ট শুল্ক আদায় করার জন্য প্যাট্রিয়ার্ক প্রেরণ করেছিলেন। তৎক্ষণাৎ আর্চবিশপ তার সকল সহকারীদের নিয়ে খাবার ছেড়ে উঠে গেলেন। এবং মৃতের জন্য একটি প্রার্থনার আয়োজন করলেন। একজন বিশপ ও ছয়জন সন্ন্যাসীকে পাঠানো হলো মৃতদেহ আনার জন্য, যিনি মধ্যরাতের একটু পরে ফিরছিলেন। মৃতদেহটি বর্তমানে চার্চের আঙিনায় বিছানো একটি কার্পেটের উপর শুইয়ে রাখা হয়েছে। তার মুখ ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে বেদীর দিকে। এরই মধ্যে, প্রচুর সংখ্যক মক্ষিমলের মোমবাতি জ্বালানো হয়েছিল, এবং অবশিষ্ট রাত্রি দুজন সন্ন্যাসী পালাক্রমে মৃতের জন্য প্রার্থনার তদারক করছিলেন। প্রত্যুষে আর্চবিশপ, বিশপ ও অন্যান্য ধর্মীয় সম্প্রদায়গণ আধা ঘণ্টা যাবৎ মৃতের জন্য প্রার্থনা করলেন; গণসমাবেশ শেষে তারা শবকে বেদীর কাছে নিয়ে এলেন, যাতে বেদীতে মৃতের পদস্পর্শ করতে পারে। অতঃপর, তারা তার মাথা ঢেকে থাকা লিলেন কাপড় সরিলে নিলেন, সে সময়ে আর্চবিশপ তার ছয়টি স্থানে পবিত্র তেল উপলিপ্ত করলেন, প্রত্যেকবারেই নির্দিষ্ট প্রার্থনা করলেন। পুনরায় তাকে ঢেকে দেওয়া হল এবং আধাঘণ্টা যাবৎ প্রার্থনা করা হল। অনুষ্ঠানগুলো সমাপন হলে, তারা মৃতদেহকে ক্রুশ ও পতাকা সহ চার্চের বাইরে নিয়ে গেলেন। প্রত্যেকের হাতে ছিল একটি করে ক্ষুদ্র মোমশিখা। মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার সময়ে একজন বিশপ তার হাতে একটি কাগজ রেখে দিলেন যাতে লেখা ছিল, আমি পিতার নিকট থেকে এসেছি এবং পিতার নিকটই ফিরে যাচ্ছি। কনভেন্টের পাশেই একটি ছোট পর্বতে কবরখানায় আনার পরে তারা পনের মিনিট অন্যান্য প্রার্থনা করলেন। এরই মধ্যে একজন বিশপ কবরে নেমে গেলেন, সমস্ত পাথর সরিয়ে স্থানটিকে মসৃণ করে দিলেন, তারপর মৃতদেহকে বড় লিলেন চাদরে ঢেকে কবরে শুইয়ে দিলেন। তারপর বিশপ, তাদের রীতি অনুযায়ী তার মাথা শরীর থেকে উঁচু করে পূর্বদিকে ঘুরিয়ে দিলেন। এসবের পর আর্চবিশপ ও তাঁর সহকারীরা প্রত্যেকে একমুষ্ঠি করে মাটি নিয়ে বিশপের হাতে দিলেন, তিনি সেগুলো শবের উপরে ছড়িয়ে দিলেন। এরপর বিশপ কবর থেকে বেরিয়ে এলেন। কবরকে মাটি দিয়ে ভরাট করে দেওয়া হল।

    সন্তু স্টিফেন থেকে আরাস পর্যন্ত একলীগ পরিমাণ উতরাই রয়েছে, পুনরায় জুলফার মহাসড়কে আসার জন্য এর পাশ ধরেই চলতে হবে। পর্বতের উপর দিয়ে আরেকটি রাস্তা রয়েছে যা একলীগের কাছের পথ। কিন্তু এটি খুব কষ্টের ও বিপদসঙ্কুল, তাই এই পথে যাতায়াত কম।

    কিন্তু নাকসিভান থেকে মহাসড়কে ফিরতে  হলে নাকসিভান থেকে আধা লীগ দূরে একটি নদী দেখা যায় যা আনাসে পড়েছে, এটি পার হতে হয় বারখিলানের একটি পাথরের সেতু দিয়ে। যদিও তুষার গলে না গেলে বা বৃষ্টিপাত না হলে এখানে সামান্য। সেতুর পরে রয়েছে তৃণভূমি। এই পথে ভ্রমণের সময় এখানে আমরা একবার থেকেছিলাম। এখানে ঈষদুষ্ণ জলের একটি প্রস্রবণ রয়েছে। এখান থেকে পান করলে পানকারীর পেট ছেড়ে দেয়। কাফেলা নাকসিভানে না থাকলে এই সেতুতে শুল্ক আদায়কারীরা এসে তাদের শুল্ক আদায় করে। প্রতিটি উটের বোঝার জন্য দশ আব্বাসী বা নয় লিভার দিতে হয়। এটা দিতে হয় মহাসড়কে নিরাপত্তার জন্য। বোঝাগুলো অনুসন্ধান না করেই পারস্যের অনেক জায়গায় এই শুল্ক দাবী করা হয়। সুবাদারকে তার সুবায় সংঘটিত প্রতিটি ডাকাতির জন্য জবাবদিহি করতে হয়, যা পারস্য ভ্রমণকে এতটাই নিরাপদ করে তোলে যে, আপনি ইচ্ছে করে না থাকলে, কাফেলার সাথে থাকার দরকার হবে না।

    সেতু থেকে জুলফা পর্যন্ত একদিনের যাত্রা। এই শহরটি একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে। তার কারণে কাফেলাকে নদীর তীর থেকে পাঁচশত পদক্ষেপের মধ্যে অবস্থান করতে হয়।

    জুলফা, আরমেনীয়দের প্রাচীন বাসভূমি। শাহ আব্বাস এটিকে পারস্যের অধিভূক্ত করেছেন। এটি দুটি পাহাড়ের মধ্যবর্তী একটি শহর, যার মধ্য দিয়ে আরাস নদী বয়ে গেছে। দুতীরে সামান্য ভূমি রেখেই বয়ে গেছে। ভাটির দিকে কোন নৌকা চলে না (উজানে একটুকরো কাঠও বহন করা যায় না) এবং এখানে স্থানটি নিচু হয়ে সমভূমিতে পরিণত হয়েছে। এখানে প্রস্তরের আশঙ্কা নেই। এখানে স্রোতধারাও শান্ত।

    এখানে একটি সুন্দর পাথুরে সেতু ছিল, শাহ আব্বাস শহরটিকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করার সময়ে এটিকেও ভেঙে ফেলেন যাতে এখানে তুর্কিদের কোন রকম আশ্রয়স্থল না থাকে। ধ্বংসাবশেষের কারণে বা পরিবেশের কারণে নগরটিকে একটি প্রাচীন সৌন্দর্যের শহর মনে হচ্ছে না; খালতা ছাড়াই পাথরগুলো গাঁথা হয়েছে যার কারণে বাড়িগুলো বাড়ির ছেয়ে গুহার মত ছিল বেশি। উত্তর-পশ্চিমাংশে লোকবসতি ছিল বেশি, অন্য দিকে লক্ষ্য করার মত কিছুই ছিল না। জুলফার জমিগুলো খুব উর্বর, সেখানে কিছু আর্মেনীয় পরিবার ফিরে এসেছে। তারা শান্তিতে বসবাস করছে। কোগিয়া নাজার, জুলফা থেকে বেরিয়ে আসা একজন প্রধান আরমেনীয়। ব্যবসায় করে ধনী হয়েছেন। শাহ আব্বাস ও তাঁর উত্তসূরী শাহ সেফির সাথে তাঁর অনেক সদ্ভাব। তিনি তাঁকে কেলোমার বা আরমেনীয় জাতির প্রধান বিচারক বানিয়েছেন। তিনি তাঁর দেশের সুনামের জন্য জুলফায় নদীর দুই তীরে দুটি বড় অতিথীশালা নির্মাণ করেছেন। তিনি লক্ষাধিক ক্রাউন ব্যয় করেছিলেন কিন্তু তাঁর মৃত্যুর ফলে অসাধারণ কাজ দুটি অসমাপ্ত রয়ে গেল।

    জুলফার এদিকে অর্ধলীগ, আরাসে পতিত খরস্রোতা নদী পার হওয়ার আগে, তাউরিসে যাওয়ার জন্য দুটি উপায় বেছে নিতে পারেন। একটি ডান দিকে, দক্ষিণপূর্ব দিক দিয়ে, অন্যটি বাম দিকে, উত্তর-পূর্ব দিক দিয়ে। আমার শেষ ইস্পাহান ভ্রমণে এই পথে আট দশজনের একটি দল নিয়ে অশ্বারোহণে গিয়েছিলাম। কাফেলাকে মহাসড়কে ছেড়ে দিয়েছি, সেটি কখনো অন্য পথে যেতে পারে না শিলা ও প্রস্তরের কারণে। তাতে উটের খুরগুলো নষ্ট হয়ে যায়। যাই হোক, আমি একটি নতুন দেশ দেখতে ইচ্ছুক ছিলাম, যা আমি মহাসড়কে আসার আগে বর্ণনা করব।

    খরস্রোতা নদী, যেখান থেকে আমরা কাফেলা ছেড়েছিলাম, সেখান থেকে সামনে এগিয়ে গেলাম এবং একটি গ্রামে রাত্রিযাপন করলাম যা দেড় লীগের বেশি দূরে নয়।

    পরদিন, আরাসের তীর ধরে পাঁচ ছয় ঘণ্টা চলার পর আস্তাবাতে পৌঁছলাম। নদী থেকে তা এক লীগ দূরে। মানসিক ক্লান্তি দূর করার জন্য আমরা সেখানে দুই দিনের বেশি ছিলাম। এটি ছোটখাট শহর, কিন্তু খুবই পরিচ্ছন্ন; এখানে চারটি অতিথীশালা রয়েছে এবং প্রত্যেক ঘরেই রয়েছে ফোয়ারা। প্রচুর পরিমাণে জল শহরটিকে সমস্ত কিছুতেই খুব ফলপ্রসু করে তুলেছে; বিশেষ করে ভাল মদে। এটি পৃথিবীর একমাত্র দেশ যা রোনাস উৎপাদন করে, যার জন্য সমগ্র পারস্য ও ভারত জুড়ে রয়েছে এর আলোচনা। রোনাস হল একপ্রকার গাছের শেকড়, যা মাটিতে গুল্মের মত জন্মে এবং খুব বেশি বড়ও হয় না। লাল রঙ তৈরিতে এটি ব্যবহৃত হয়। এটি এমন লাল যা মোগল শাসন থেকে বেরিয়ে আসা সমগ্র কালিকটকে সৌন্দর্যে রাঙা করেছে। মাটির নিচ থেকে টেনে বের করে আনা শিকড়গুলো অনেক লম্বা; সেগুলোকে তারা মানুষের হাতের চেয়ে লম্বা নয় এমন টুকরো করে কাটে, গাড়িতে বহন উপযোগী করার জন্য। আরমাসে রোনাস বোঝাই কাফেলাগুলোকে দেখা অনেক বিস্ময়কর ব্যাপার, যেখান থেকে তারা ভারতে চালান করে।

    শিকড়গুলো রসপূর্ণ এবং উন্নত আরক উৎপাদন করে; কারণ আমার স্মরণে আছে, রোনাস বোঝাই একটি ভারতীয় জাহাজ থেকে অরমাসের রাস্তায় কিছু ফেলা দেওয়া হয়েছিল। যেখানে রোনাসের আঁটিগুলো ভাসছিল, সাগর বেশ কয়েকদিন যাবৎ লাল রঙের দেখাচ্ছিল।

    আস্তাবাত থেকে বের হওয়ার পরে আমাদের জন্য উচিত কাজ হচ্ছে আমাদের ঘোড়াগুলোকে খড় ও বার্লি খেতে দেওয়া, বুঝতে পেরেছি সারাদিনের ভ্রমণের পর আমাদের কারো সাথে সাক্ষাৎ করা বাঞ্ছনীয় নয়। সেখান থেকে নৌকায় চড়ে এক ঘণ্টার মত আমরা আরাস নদীর ভাটিতে ভ্রমণ করেছিলাম। দিনের অবশিষ্টাংশ আমরা পর্বতে ভ্রমণ করেছিলাম। স্রোতস্বিনী ও পাথরের উপর দিয়ে। সেই সন্ধ্যায় আমরা একটি ক্ষুদ্র জলধারার পাশে বিশ্রাম করেছিলাম।

    পরদিন, একটি প্রশস্ত উপত্যকায় দুই তিন ঘণ্টা ভ্রমণ করার পরে আমরা একটি উঁচু পর্বতে আরোহণ করলাম। একেবারে শীর্ষে দুই তিনটি জীর্ণ বাড়ি, সেখানে আমরা সেদিনের জন্য থেকে গেলাম।

    পরে, পঞ্চমবার কাফেলা ছাড়ার পরে, আমরা একটি উতরাই দিয়ে দুই তিন ঘণ্টা ভ্রমণ করে একটি বড় ও পরিচ্ছন্ন গ্রামে এসে পৌঁছলাম, এখানে অনেক ফলাদি উৎপন্ন হয়। সেখানে আমরা এক দুই ঘণ্টার জন্য বিশ্রাম নিলাম; সেখান থেকে আমরা একটি নদীর উপরে বিশাল পাথুরে সেতুতে এসে পৌঁছলাম। বৃষ্টি না হলে এই নদীতে জল থাকে না। এটি রৌমি হ্রদে পড়েছে। এর জল নোংরা ও বাজে স্বাদের, বিশেষ করে যখন পানি কম থাকে তখন পান করাই যায় না। সেতু থেকে পোয়া লীগ দূরে মাটিতে স্তম্ভের মত তিনটি লম্বা পাথর স্থাপন করা হয়েছে। স্থানীয়েরা বলে, তারা স্মৃতিস্তম্ভ হিসেবে এগুলো স্থাপন করেছে। এই স্থানেই হিস্টাস্পেসের পুত্র দারিয়ূস নিজের ঘোড়ার দ্বারা ভদ্রলোকদের সাথে চতুরতা করে রাজা হয়েছিলেন। সেখান থেকে তাউরিস অর্ধলীগ। এই পথেই আমরা মেডিসের পর্বতমালা অতিক্রম করেছি যা প্রাচীন প্রার্থিয়ানদের দিকে চলে গেছে। এটি সমস্ত পারস্যের মধ্যে সবচেয়ে উর্বর। তারা প্রচুর পরিমাণে ভুট্টা ও ফল উৎপন্ন করে। পর্বতমালার শিখরে সমতলে প্রচুর গম উৎপন্ন হয়, যা অসাধারণ উর্বর। সেখানে উৎপন্ন প্রস্রবণ ও বৃষ্টিপাত সেখানে যা জন্মে তাতে সতেজ সৌন্দর্য ও উৎকৃষ্ট স্বাদের হয়। যা পারস্যের অন্য যেকোন স্থানের চেয়ে অনেক বেশি স্বাদের যেগুলোতে পানির প্রয়োজন পড়ে এবং এই ক্ষেত্রগুলির পণ্যগুলির দামও বেশি।

    এখন মহাসড়কে। এখন কাফেলা স্রোতটি অতিক্রম করে যেখানে আমরা এটিকে ছেড়ে এসেছিলাম। পরের রাতে আরাসের তীরে অবস্থান করে। পরের সকালে খেয়া পার হয়। এটি জুলফা হয়ে যায়নি, যদিও কাছাকাছি দিয়ে গিয়েছে। কেননা, শহরের অপর দিকে তিন লীগ পর্যন্ত রাস্তা অত্যন্ত খারাপ এব